দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী ভয়াবহ আন্তর্জাতিক সংকট! করোনায় উদ্বেগ রাষ্ট্রপুঞ্জের

আন্তর্জাতিক,
নিজস্ব প্রতিবেদন,
পি এম নিউজ ৩৬৫, ১ এপ্রিল, ২০২০, বুধবার

রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব আন্তনিয়ো গুতেরেস এদিন আন্তর্জাতিক স্তরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে চরম উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী পৃথিবীজুড়ে সবচেয়ে ভয়াবহ সংকতটের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে করোনাভাইরাস। করোনার কারণে বিশ্বজুড়ে আগামীদিনগুলোতে যে চরম আর্থিক মন্দা আসতে চলেছে, তা নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তিনি।

চীনের উহান থেকে উদ্ভূত মারণ COVID-19-এর আর্থসামাজিক প্রভাব নিয়ে একটি রিপোর্ট প্রকাশের অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব বলেন, এই ভাইরাসের সংক্রমণ এতোই ভয়াবহতা ডেকে আনবে যে পরবর্তীতে আর্থিক সংকট সৃষ্টি হবে যার মিলিত প্রভাবের কারণে বাড়বে অস্থিরতা, দ্বন্দ্ব। গোটা বিশ্ব যাতে COVID-19-এর বিরুদ্ধে শক্তভাবে রুখে দাঁড়ায়, সেই প্রচেষ্টায় করা উচিৎ বলে মত গুতেরেসের।

তিনি আরও বলেন, সংকটময় পরিস্থিতিতে রাজনীতি বাদ দিয়ে একজোট হয়ে এই সংক্রমণ যুদ্ধের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ালে তবেই সাফল্য আসবে। গুতেরেসের মতে, ‘বিশ্ব একটা অকল্পনীয় সংকটের মধ্যে দিয়ে অতিবাহিত হচ্ছে। গত সাত দশক ধরে এমন স্বাস্থ্য সংকটে পড়তে হয়নি, যেখানে মানুষের এত দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। স্বাস্থ্য সংকটের থেকেও বেশি মানব সংকটের প্রকটতা ডেকে এনেছে এই মারণভাইরাস।”

বিশ্বব্যাপী মহামারীর সৃষ্টি করা করোনাভাইরাস বিশ্ব অর্থনীতিতে বিপুল মন্দা ডেকে আনবে বলে অনেকেই ধারণা করছেন। রাষ্ট্রপুঞ্জের বাণিজ্য সংক্রান্ত রিপোর্টে তার ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। সেখানে বলা হয়েছে, বিশ্বব্যাপী আর্থিক মন্দার সবচেয়ে খারাপ প্রভাব পড়বে উন্নয়নশীল দেশগুলির উপর। তবে কিছুটা হলেও স্বস্তি যে, ভারত ও চিন সেই মন্দার ছোবল থেকে কিছুটা হলেও রেহাই পেতে পারে বলে জানিয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্ট।

বিশ্বের জনসংখ্যার বেশিরভাগ বাস করে এই উন্নয়নশীল দেশগুলিতে। তাই করোনা সংকটের জেরে বিশ্বজুড়ে আর্থিক মন্দার সবচেয়ে ভয়াবহতা অনুভব করবে এই দেশগুলি। তাদের জন্য ২.৫ ট্রিলিয়ন ডলারের ত্রাণ প্যাকেজের কথা ঘোষণা করেছে রাষ্ট্রপুঞ্জ।

এখনো পর্যন্ত করোনার ছোবলে বিশ্বজুড়ে প্রাণহানির সংখ্যা বিয়াল্লিশ হাজার ছাড়িয়েছে।

সব আপডেট গুলো এখানে।