প্রায় আড়াই মাস পর, কাশ্মীরের তিন নেতাকে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত জম্মু–কাশ্মীর প্রশাসনের

প্রায় আড়াই মাস পর, কাশ্মীরের তিন নেতাকে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত জম্মু–কাশ্মীর প্রশাসনের

পি.এম.নিউজ ৩৬৫;ডিজিটাল ডেস্ক:কিছুদিন আগেই জম্মুর বেশ কয়েকজন নেতাকে মুক্তি দিয়েছিলেন প্রশাসন। এবার প্রায় আড়াই মাস পর কাশ্মীরের তিন নেতাকে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জম্মু–কাশ্মীর প্রশাসন।

মুক্তি পাচ্ছেন ইয়ার মীর, নূর মহম্মদ এবং সোয়াইব লোন। বুধবার রাতে একথা জানিয়েছেন জম্মু–কাশ্মীর প্রশাসন। যদিও এই তিন শর্তসাপেক্ষ মুক্তি পাচ্ছেন। মুক্তি পাবার সময়ে তাঁদের একটি মুচলেকা দিতে হবে যে উপত্যকায় শান্তি ও শৃঙ্খলা বিঘ্নিত এমন কাজ তাঁরা করবেন না। ইয়ার মীর পিডিপি বিধায়ক। উপত্যকার রফিবাদ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

ন্যাশনাল কনফারেন্সের কর্মী হলেন নূর মহম্মদ। শ্রীনগরের বাটমালু এলাকার দায়িত্বে আছেন তিনি। কংগ্রেসের টিকিটে উত্তর কাশ্মীরে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন সোয়াইব লোন। যদিও পরে কংগ্রেস ছেড়ে দেন তিনি। গত ২১ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্যের অবনতির কারণে পিডিপির নেতা ইমরান আনসারি ও সৈয়দ আখুনকে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল।

গত আগস্ট মাসে জম্মু–কাশ্মীরকে বিশেষ ক্ষমতাপ্রদানকারী ৩৭০ ধারা বিলোপের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগেই সব রাজনৈতিক নেতাদের আটক ও গৃহবন্দি করেছিল উপত্যকার প্রশাসন। এখনও গৃহবন্দি প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহেবুবা মুফতি, ওমর আবদুল্লা, ফারুক আবদুল্লা।

সূত্রের খবর, সাধারণ মানুষ ও নেতাদের মিলিয়ে মোট ১০০০ জনকে আটক করে রেখেছেন প্রশাসন। সামনেই উপত্যকার ব্লক স্তরে নির্বাচন। আর সেই কারণেই চাপের মুখে পড়ে বাধ্য হয়ে রাজনৈতিক নেতাদের এক এক করে মুক্তি দিচ্ছেন প্রশাসন।

কিছুদিন আগেই জম্মুর বেশ কয়েকজন নেতাকে মুক্তি দিয়েছিলেন প্রশাসন। এবার প্রায় আড়াই মাস পর কাশ্মীরের তিন নেতাকে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জম্মু–কাশ্মীর প্রশাসন।

মুক্তি পাচ্ছেন ইয়ার মীর, নূর মহম্মদ এবং সোয়াইব লোন। বুধবার রাতে একথা জানিয়েছেন জম্মু–কাশ্মীর প্রশাসন। যদিও এই তিন শর্তসাপেক্ষ মুক্তি পাচ্ছেন। মুক্তি পাবার সময়ে তাঁদের একটি মুচলেকা দিতে হবে যে উপত্যকায় শান্তি ও শৃঙ্খলা বিঘ্নিত এমন কাজ তাঁরা করবেন না। ইয়ার মীর পিডিপি বিধায়ক। উপত্যকার রফিবাদ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি।

ন্যাশনাল কনফারেন্সের কর্মী হলেন নূর মহম্মদ। শ্রীনগরের বাটমালু এলাকার দায়িত্বে আছেন তিনি। কংগ্রেসের টিকিটে উত্তর কাশ্মীরে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন সোয়াইব লোন। যদিও পরে কংগ্রেস ছেড়ে দেন তিনি। গত ২১ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্যের অবনতির কারণে পিডিপির নেতা ইমরান আনসারি ও সৈয়দ আখুনকে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল।

গত আগস্ট মাসে জম্মু–কাশ্মীরকে বিশেষ ক্ষমতাপ্রদানকারী ৩৭০ ধারা বিলোপের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগেই সব রাজনৈতিক নেতাদের আটক ও গৃহবন্দি করেছিল উপত্যকার প্রশাসন। এখনও গৃহবন্দি প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহেবুবা মুফতি, ওমর আবদুল্লা, ফারুক আবদুল্লা।

সূত্রের খবর, সাধারণ মানুষ ও নেতাদের মিলিয়ে মোট ১০০০ জনকে আটক করে রেখেছেন প্রশাসন। সামনেই উপত্যকার ব্লক স্তরে নির্বাচন। আর সেই কারণেই চাপের মুখে পড়ে বাধ্য হয়ে রাজনৈতিক নেতাদের এক এক করে মুক্তি দিচ্ছেন প্রশাসন।