করোনাভাইরাস! প্রায় আড়াই লক্ষ মার্কিনীর মৃত্যুর আশঙ্কা প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউস।

আন্তর্জাতিক,
নিজস্ব প্রতিবেদন,
পি এম নিউজ ৩৬৫, ১ এপ্রিল, ২০২০, বুধবার

মঙ্গলবার হোয়াইট হাউস যুক্তরাষ্ট্রে সামাজিক দূরত্ব নির্দেশিকা বজায় থাকা সত্ত্বেও করোনভাইরাস মহামারী থেকে আগামীতে ১ লক্ষ থেকে ২ লক্ষ ৪০ হাজার মার্কিনীর মৃত্যুর আশঙ্কা প্রকাশ করে পূর্বাভাস দিয়েছে।

মঙ্গলবার হোয়াইট হাউস এক গুরুত্বপূর্ণ মিটিংয়ের সময় এই অনুমানগুলি উপস্থাপন করছে। তাদের পরামর্শ, সারা দেশে যদি সামাজিক দূরত্বের ব্যবস্থা না করা হয়, তবে দেড় থেকে ২.২ মিলিয়ন (প্রায় ১৫ থেকে ২২ লক্ষ) মানুষ মারা যেত!

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ অ্যালার্জি এবং সংক্রামক রোগের ডিরেক্টর, যিনি মার্কিন সংক্রমণ রোধের প্রচেষ্টাকে নেতৃত্ব দিতে সহায়তা করছেন, সেই ডঃ অ্যান্টনি ফাউসি বলেছিলেন, “যতসম্ভব দরকারি, ততই আমাদের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে”। তবে তিনি আরও যোগ করেছেন যে তিনি আশাবাদী, নতুন করে রোগটি বেশি বাড়বে না।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনভাইরাসটির প্রসারকে “জীবন ও মৃত্যুর বিষয়” বলে ঝুঁকি প্রকাশ করেন। এবং এর অবাধ প্রসারকে ধীর করার জন্য মার্কিন প্রচেষ্টাকে ধন্যবাদ ও প্রশংসা জ্ঞাপন করেন এবং জনগণকে তাঁর প্রশাসনের সামাজিক দূরত্বের দিকনির্দেশনাগুলি মান্য করার আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রাথমিক পর্যায়ে ট্রাম্প আমেরিকানদের “দুই সপ্তাহের” জন্য সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে দেশটি বৈশ্বিক বিপর্যয়ের মুখে পতিত হয় যা ৩,৭০০ এরও বেশি মার্কিনীর জীবন কেড়ে নেয় এবং মোট ১ লক্ষ ৮৬ হাজার সংক্রমণ ছড়িয়ে যায় এ পর্যন্ত।

ট্রাম্প বলেন, “আমি চাই প্রতিটি আমেরিকান যেন সামনের অনাগত কঠিন দিনগুলির জন্য প্রস্তুত থাকে,”। ” কারণ আমরা খুব নিষ্ঠুরতম দু’সপ্তাহ পার করতে চলেছি ।”

গত রবিবার ট্রাম্প ঘোষণা করেছিলেন যে তিনি ৩০ ই এপ্রিল পর্যন্ত সামাজিক দূরত্বের নির্দেশিকা বাড়িয়ে দিচ্ছেন, যাতে আমেরিকানদের সামাজিক জমায়েত বন্ধ করা হয়, বাড়ি থেকে কাজ করা সম্ভব হয়, স্কুলে অনসাইট শিখন স্থগিত করা এবং একইসাথে ভাইরাসের বিস্তার প্রতিরোধে দেশব্যাপী প্রচেষ্টার আহ্বান জানান। তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে মঙ্গলবার বর্ধিত নির্দেশিকা প্রকাশ করেছেন।

অনেক রাজ্য এবং স্থানীয় সরকার ইতিমধ্যে জনগণের অবাধ গতিবিধি এবং জমায়েতের জায়গায় কঠোর নিয়ন্ত্রণ জারি করেছে।

কর্মকর্তাদের মতে, নিউইয়র্ক সবচেয়ে বেশি করোনায় জর্জরিত হয়েছে। প্রায় ১,৫০০ জনেরও বেশি সেখানে মারা গেছে। তবে ইলিনয়, লুইসিয়ানা, মিশিগান এবং ফ্লোরিডাসহ পুরো মার্কিন জুড়ে নতুন নতুন হটস্পট উত্থিত হচ্ছে।

মঙ্গলবার ট্রাম্পের এই মন্তব্য শেয়ার বাজারের জন্য আরেকটি বিপর্যয় ডেকে আনে। করোনভাইরাসটি অর্থনীতিকে প্রায় স্থবির করে দিয়েছে এবং লক্ষ লক্ষ বেকার সৃষ্টি হয় দেশজুড়ে।

সব আপডেট এখানে।