মোদীর গালে “গণতন্ত্রের থাপ্পড়” মারতে চান: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

পি এম নিউজ ডেক্স:ভোটের মধ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় নিয়ে সরগরম রাজনীতি মহল। এই ব্যাপারে প্রথমেই চলে আসে প্রধানমন্ত্রী ও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথা। বিভিন্ন সময়ে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে আক্রমণ শানাতে গিয়ে ভাষা সংযম হারানোর অভিযোগ উঠেছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরদ্ধে।

এদিন মঙ্গলবার পুরুলিয়ায় একটি নির্বাচনী জনসভায় মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্য পুনরায় উস্কে দিল বিতর্ক। মুখ্যমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তোপ দেগে বলেন, মোদীর গালে “গণতন্ত্রের থাপ্পড়” মারতে চান তিনি। এই মন্তব‍্যের জেরে ট্যুইটে মমতাকে সতর্ক করে ভাষা প্রয়োগের ব্যাপারে সাবধান ও সংযত হতে বলেন সুষমা।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীকে তুই তুকারি করেও সম্বোধন করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এমনকি পাথর ভরা রসগোল্লা খাইয়ে প্রধানমন্ত্রীর দাঁত ভেঙ্গে দেবার কথাও বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং নরেন্দ্র মোদী দেশের প্রধানমন্ত্রী।
এই সম্পর্কের কথা মনে করিয়ে দেন সুষমা। তিনি রাজ্যের সাথে কেন্দ্রের সম্পর্কের কথাও স্মরণ করিয়ে দেন। রাজনীতিকে সম্ভাবনাময় শিল্প বলা হয়। রাজনীতিতে চিরবন্ধু বা চিরশত্রু বলে কিছু হয়না। খোদ মুখ্যমন্ত্রীর মুখেই এই কথা বহুবার শোনা গিয়েছে।
সেই কথাও মনে করিয়ে দেন সুষমা স্বরাজ।

স্বরাজ বলেন, রাজ্যকে কেন্দ্রের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে চলতে হয়। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে কোনও বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর সাথে মিটিং করতে হতেই পারে। ভবিষ্যতে রাজনৈতিক অবস্থার পরিবর্তন হলে মমতার বন্ধুত্বের প্রয়োজন হতে পারে। সেদিন যেন তাকে লজ্জার মুখে পড়তে না হয়। মনে করিয়ে দেন সুষমা।