সুপ্রিম কোর্টও কি বিশ্বাসঘাতক ?

সুপ্রিম কোর্টও কি বিশ্বাসঘাতক !

পি.এম.নিউজ;ডিজিটাল ডেস্ক:কাশ্মীর ইস্যুতে ধাক্কা খেল কেন্দ্র। ৩৭০ ধারা বাতিলের বিরোধিতা এবং নাগরিক অধিকার ও সংবাদমাধ্যমের উপর হস্তক্ষেপের প্রতিবাদে জনস্বার্থ মামলা দায়ের
করেছিলেন সি.পি.আই.এম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি,কাশ্মীরের এক আইনের ছাত্র ও সাংবাদিক অনুরাধা বাহসিন সহ বেশ কয়েকজন।

সেই জনস্বার্থ করা মামলার ভিত্তিতে কেন্দ্র ও জম্মু ও কাশ্মীর প্রসাশনের কাছে নোটিস পাঠাল সুপ্রিম কোর্ট। কাশ্মীরে নিষেধাজ্ঞা জারি এবং সংবাদমাধ্যমের উপর নিয়ন্ত্রণ নিয়ে কেন্দ্রের জবাব চেয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। আগামী ৭ দিনের মধ্যে এই নোটিসের জবাব দিতে হবে কেন্দ্রকে।

সেই সঙ্গে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ
জানিয়ে দেন কেন্দ্রের ৩৭০ ধারা বিলোপে সিদ্ধান্ত খতিয়ে দেখার জন্য পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ গঠন করা হবে।এই পাঁচ সদস্যের মধ্যে বিচারপতি আব্দুল নাজির ও আছেন।

শীর্ষ আদালতের এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা
করেছিলেন,সরকার পক্ষের হয়ে সওয়াল করা সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা এবং অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেণুগোপাল।

কিন্তু তাদের এই আবেদনে সাড়া দেইনি সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি। যা কেন্দ্রের জন্য ধাক্কা হিসেবেই দেখছে বিভিন্ন মহল।

সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুর
কাশ্মীরে যেতে বাধা দেওয়ার সিদ্ধান্তের
বিরোধিতা করে মামলর অভিযোগের ভিত্তিতে
সীতারাম ইয়েচুরি ও এক আইনের ছাত্রকে
উপত্যকায় যাওয়ার অনুমতি দিল শীর্ষ আদালত।

তবে সিপিআইএম বিধায়ক ওয়াই এস তারিগামির সঙ্গে দেখা করা ছাড়া কোন রাজনৈতিক কাজ করতে পারবেন না
বলে জানিয়ে দেন শীর্ষ আদালত।