CAA এর বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন কেরালার বাম সরকার

পিএম নিউজ ৩৬৫: ইতিপূর্বে সর্বসম্মতিক্রমে সিএএ বাতিলের প্রস্তাব পাস হয় কেরালা বিধানসভায়। আরোও একধাপ এগিয়ে
প্রথম রাজ্য হিসাবে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করল কেরালার পিনারাই বিজয়ন সরকার। সিএএ-কে অসাংবিধানিক ঘোষণা করা হোক, সর্বোচ্চ আদালতে এই আর্জিই জানিয়েছে কেরালার বাম সরকার।

এই আবেদনে কেরালা সরকার দাবি করেছে সিএএ প্রয়োগের ফলে ভারতীয় সংবিধানের ১৪ ও ২৫ নম্বর ধারায় উল্লেখিত নাগরিকদের মৌলিক অধিকার খর্ব হবে। সংবিধানের ১১৪ নম্বর ধারায় নাগরিকের সমানাধিকারের কথা বলা হয়েছে। আইনের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত ছাড়া কোনও নাগরিকের ব্যক্তি স্বাধীনতা হরণ করা যাবে না বলে উল্লেখ ররেছে ২১ নম্বর ধারায়। এছাড়া, ২৫ নম্বর ধারায় বর্ণিত বিবেক, কাজের অধিকার ও ধর্মীয় প্রচারের স্বাধীনতায় দেশের সব নাগরিক সমান।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় রুজু হওয়া ৬০টি মামলার শুনানি চলছে সুপ্রিম কোর্টে।
নয়া নাগরিকত্ব আইন বাতিলের দাবিতে গত ডিসেম্বরেই সর্বসম্মতিক্রমে কেরালা বিধানসভায় প্রস্তাব পাস হয়। এলডিএফ সরকারের তরফে বিধানসভায় এই প্রস্তাব আনেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। প্রস্তাবকে সমর্থন করে বিরোধী কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউডিএফ বিধায়করা। নয়া নাগরিকত্ব আইনকে ‘বৈষম্যমূলক’ ও ‘সংবিধানের ধর্ম নিরপেক্ষতার’পরিপন্থী বলে দাবি করা হয়। এর আগে নজিরবিহীনভাবে কেরালার শাসক ও বিরোধী শিবির একসঙ্গে পথে নেমে সিএএ-এর প্রতিবাদ করেছিল।

সিএএ-এর প্রতিবাদে সরব বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনিই প্রথম ঘোষণা করেছিলেন এরাজ্যে সিএএ লাগু করা হবে না। কিন্তু বাস্তবের চিত্র অনেক টা আলাদা।