আগ্রার চাহ পোখার গ্রামের প্রধান কবরস্থান করার কথা বললেই রাতারাতি হনুমান মন্দিরে

পিএম নিউজ ডেস্ক:দীর্ঘদিন ধরেই কবরস্থানের দাবি জানিয়ে আসছে আগ্রার চাহ পোখার গ্রামের বাসিন্দারা। কবরস্থানের অভাবে বাড়ির মধ্যেই মৃতদের কবর দিতে বাধ্য হচ্ছেন তাঁরা। দীর্ঘদিনের দাবি শুনে অবশেষে দিন কয়েক আগে গ্রামের কিছুটা খালি জমিতে কবরস্থান করা হবে বলে জানান গ্রাম প্রধান সুন্দর সিং।

মুসলিমদের জন্য কোনও কবরস্থান না থাকায় গ্রামের মধ্যে কিছুটা খালি জমিতে কবরস্থান করার কথা ঘোষণা করেছিলেন গ্রাম প্রধান সুন্দর সিং। তারপরেই রাতারাতি সেই জমিতে গজিয়ে উঠল হনুমান মন্দির। খানিকটা ইঁটের গাঁথুনি করে সেখানে একটা বজরংবলীর মূর্তিও বসিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ওই জমিতে মুসলমানদের কবর স্থান হবে তাতে প্রবল আপত্তি হিন্দু সম্প্রদায়ের। গ্রামের মধ্যে এভাবে কারোর সঙ্গে আলোচনা না করে কবরস্থান তৈরি করা হলে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পরিবেশ নষ্ট হয়ে যাবে বলেও হুমকি দিয়েছেন কিছু হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক।

গ্রামবাসী বলেছেন যে ওই জমির ওপর দিয়ে লোকে যাতায়াত করে, গরমে রাতের বেলা অনেকে বাইরে এসে ঘুমোয়। কবরস্থান করা হলে সব নষ্ট হয়ে যাবে বলে মনে করছেন অনেকে।
অপরপক্ষে মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকেরা বলে ওই জায়গায় হনুমান মন্দির হলে কি লোক যাতায়াত করতে কি কোন অসুবিধা হবে না? প্রশ্ন থেকেই যায় এটা কি তাহলে সাম্প্রদায়িক হিংসা!
গ্রামের প্রধান সুন্দর সিং গোটা বিষয়টি তিনি প্রশাসনকে জানাবেন বলেন।