‘দাঙ্গা নয় – শান্তি চাই’ , ‘ঘৃণা নয় – ভালোবাসা চাই ‘, ‘বিভেদ নয় – ঐক্য চাই ‘ এই স্লোগানে মিছিল করলেন শান্তিকামী নাগরিক সমাজ

নিজস্ব প্রতিনিধি,পি এম নিউজ:
শান্তিকামী নাগরিক সমাজের উদ্যোগে শান্তি ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে একটি বৃহৎ মৌন মিছিল অনুষ্ঠিত হল।
এ দিন ‌সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ সহ সম্প্রতি ঝাড়খণ্ডের নিরীহ তাবরেজ আনসারী ও মালদা জেলার শেখ সানাউল্লাহ কে নির্মমভাবে হত্যা এছাড়া পার্কসার্কাস, ক্যানিং সহ একাধিক জায়গায় নিরীহ মানুষদের উপর আক্রমণ ও সারা দেশ জুড়ে সংখ্যালঘু মুসলিম, দলিত সম্প্রদায়ের উপর অকথ্য অত্যাচারের ঘটনা অশুভ শক্তির চলার পথে আক্রমণের শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ ।
ফলে ভারতীয় সংবিধানের পবিত্রতা এবং ধর্ম নিরপেক্ষতা ভূলুণ্ঠিত হচ্ছে ।
তাই এহেন পরিস্থিতিতে বারাসাতের শান্তিকামী নাগরিক সমাজ এলাকার শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষের সহযোগিতায় জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সমাজের শান্তি কামনা ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বেলা দুটোর সময় কাজীপাড়া জামে মসজিদ সংলগ্ন স্থান থেকে একটি বৃহৎ মৌন মিছিল শুরু হয়।
এবং মিছিলটি চাঁপাডালি মোড় ও বারাসাত থানার সামনে দিয়ে পুনরায় আবার বারাসাত স্টেশন রোড ধরে ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট অফিস এর উপর দিয়ে আবার কাজীপাড়া জগদিঘাটা এসে শেষ হয় ।

এদিনের এই মৌন মিছিলে অংশগ্রহণ করেন বারাসাত কোর্টের আইনজীবী এবং প্রাক্তন বারাসাত বার কাউন্সিলের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি সুশোভন মিত্র মহাশয় ,আইনজীবী তারিকুর রহমান, গোবরডাঙ্গা রামকৃষ্ণ মিশনের স্বামী স্বরূপানন্দ মহারাজ, অল ইন্ডিয়া সুন্নাত উল জামাতের রাজ্য সম্পাদক মুফতি আব্দুল মাতিন সাহেব, বিশিষ্ট শিখ নেতা সুখ নন্দন সিং আলুওয়ালিয়া, পানিগোবরা পীর সাহেবজাদা হাসানুজ্জামান , সিরাতের রাজ্য সম্পাদক বিশিষ্ট সাংবাদিক শিক্ষক আবু সিদ্দিক খান, সিরাতের রাজ্য নেতৃত্ব রিয়াজুল ইসলাম ,মোজাদ্দেদ অনাথ ফাউন্ডেশনের হাড়োয়া ব্লক এর দায়িত্বশীল হাফেজ আজিজুদ্দিন, সারাবাংলা সংখ্যালঘু ছাএ কাউন্সিলের রাজ্য সম্পাদক হাফেজ নাজমুল আরেফিন , প্রগ্রেসিভ ইয়ুথ ফাউন্ডেশনের রাজ্য সম্পাদক সিয়ামত আলি, সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশন এর উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সম্পাদক মোঃ তৈয়েবুর রহমান, বিশিষ্ট সমাজসেবী গোলাম আম্বিয়া সাহেব , বেঙ্গল এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন এর পক্ষে রাকিবুল ইসলাম , হিউম্যান রাইটস এর রাজ্য সভাপতি ইমরান আলি,এছাড়া বহু গুণীজন এবং আমন্ত্রিত অতিথিরা উপস্থিত হন।