আপনি কি কাজে বিরতি নিয়ে স্মার্ট ফোন ব্যবহার করেন! তবে তো আপনার মস্তিষ্ক কোনোই বিরতি পাচ্ছে না

ডিজিটাল নিউজ ডেস্ক, পিএম নিউজ: অনেকেই মাথা ঘামানোর কাজে মাথা খাটিয়ে ফাঁক খুঁজে একটু বিরতি নেন। কিন্তু এ বিরতিতে যদি আবার স্মার্টফোন ব্যবহার করেন, তাহলে সে বিরতি কোনো কাজে আসে না। সাম্প্রতিক যুক্তরাষ্ট্রে এক গবেষণায় এমন বিষয় উঠে এসেছে। সেই দেশের রাটগার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা এ নিয়ে এক গবেষণা চালান।

এই গবেষণার গবেষকদের মতে, মানসিক চ্যালেঞ্জযুক্ত কাজের ফাঁকে স্মার্টফোন ব্যবহার করলে মস্তিষ্কের কোনো বিরতি হয় না। মস্তিষ্ক নতুন করে কর্মক্ষম হয়ে ওঠার সময় পায় না। ফলে এতে কাজের ফলাফলের উপর বেশ প্রভাব পড়ে।
গবেষণা সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশিত হয়েছে ‘বিহেভিওরাল অ্যাডিকশনস’ সাময়িকীতে।

রাটগার্স বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক টেরি কার্টবার্গ বলেন, কম্পিউটার ও ল্যাপটপের স্ক্রিনের চেয়ে স্মার্টফোনের স্ক্রিন সক্রিয় হয়ে ওঠার বিষয়টি আলাদা। বিরতিতে কারও সঙ্গে কথা বলতে, বার্তা পড়তে বা কোনো বিষয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করার চিন্তা থেকে স্মার্টফোন চালু করলে তাতে মস্তিষ্কের ওপর প্রভাব পড়ে।

গবেষকেরা ৪১৪ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে এ গবেষণা চালান। তাদের ২০ সেট পাজল মেলাতে দেওয়া হয়। এর ফাঁকে বিরতি দিয়ে একদল শিক্ষার্থীকে নির্দিষ্ট বাজেটের মধ্যে কাগজের বিজ্ঞাপন, কম্পিউটার স্ক্রিন বা স্মার্টফোন ব্যবহার করে কিছু কেনাকাটা বিষয়ে বলা হয়। বিরতির পর দেখা যায় যারা স্মার্টফোন বিরতি নিয়েছেন তারা অনেক কিছু ভুলে গেছেন এবং পাজল মেলানোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে খারাপ করেছেন। তাদের সমস্যা সমাধান করতে ১৯ শতাংশ ক্ষেত্রে দেরি হয়েছে ।

গবেষকেরা বলেন, যারা কাজের ফাঁকে কোনো বিরতি নেননি তাদের ফলের সঙ্গে স্মার্টফোন বিরতি নেওয়া দলের ফলাফল প্রায় সমান। অর্থাৎ, বিরতি নেওয়া আর না নেওয়া সমান। যারা একেবারেই বিরতি নেননি তাদের তুলনায় শব্দজট মেলানোর ক্ষেত্রে স্মার্টফোন বিরতি নেওয়া শিক্ষার্থীদের ফলাফল অবশ্য সামান্য ভালো। অর্থাৎ, একেবারেই বিরতি না নেওয়া ঠিক নয়।