দিল্লি পাড়ি দিলেন বাংলার গৌরব, সৌরভ দাদা

দিল্লি পাড়ি বাংলার গৌরব সৌরভ দাদা

পি.এম.নিউজ ৩৬৫;ভাঙড়:দম ফেলার সময় নেই। মঙ্গলবার কলকাতা থেকে সকাল ন’টা পনেরোর উড়ানে মুম্বইয়ে পাড়ি দেওয়া, কিন্তু অবতরণের আগে বেশ কিছুক্ষণ আকাশেই ঘুরপাক খেতে হয়েছে মুম্বইয়ের কুখ্যাত ‘এয়ার ট্রাফিক’–এর কারণে। সেখানেই দেরি হয়ে যায়।

অগত্যা, বিমানবন্দর থেকে সোজা দক্ষিণ মুম্বইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়াম সংলগ্ন ‘ক্রিকেট সেন্টার’–এ পৌঁছে যাওয়া। সেখানেই তো বুধবার নিজের সাম্রাজ্য বুঝে নেবেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের নয়া সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি।

দুপুর দেড়টা নাগাদ সেই যে ‘ক্রিকেট সেন্টার’–এ ঢোকেন সৌরভ, বেরোতে বেরোতে বিকেল গড়িয়ে সন্ধে, সন্ধে অতিক্রম করে রাত হয়ে যায়। রাতে হোটেলে বোর্ডের কর্তাদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেন সৌরভ। মুম্বই ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের নৈশভোজেও তিনি মধ্যমণি। ভারতীয় ক্রিকেটের গুরুদায়িত্ব নেওয়ার আগে সব কিছু ভাল করে বুঝে নেওয়া। যেন কোথাও কোনও ফাঁক না থাকে।

মুম্বই থেকে জানা গেছে, মিটিংয়ের পর মিটিং সেরেছেন। বুঝে নিতে চেয়েছেন খুঁটিনাটি যাবতীয় সব। তাঁর ‘পারফেকশন’ নিয়ে কেউ কোনও প্রশ্ন তুলতে পারেননি কোনওদিন। তাই ভাল করে দেখে নিলেন, ভুলভ্রান্তি যেন না হয়। মঙ্গলবার ভারতের নয়া বোর্ড সভাপতির সঙ্গে দেখা করার জন্য ভারতীয় বোর্ডের সদর দপ্তরে উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট নিয়োজিত সিইও এ সদস্যরা।

অর্থাৎ, বিনোদ রাই এবং ডায়না এডুলজি। তাঁরা সৌরভকে স্বাগত জানান। ‘ক্রিকেট সেন্টার’–এর নীচে সৌরভকে ‘রিসিভ’ করার জন্য অপেক্ষায় ছিলেন বোর্ডের সিইও রাহুল জোহরি। তিনিই সৌরভকে ওপরে নিয়ে যান। ছিলেন বোর্ডের ক্রিকেট অপারেশন বিষয়ক জেনারেল ম্যানেজার প্রাক্তন ক্রিকেটার সাবা করিম। যিনি কিনা আবার সৌরভের নেতৃত্বে ভারতীয় দলে খেলেওছেন।

‘ক্রিকেট সেন্টার’–এ কর্মরত কর্মীদের সঙ্গে ভাল করে আলাপ করেন সৌরভ। ছিলেন এতদিন ধরে থাকা বোর্ডের কার্যকরী সভাপতি সি কে খান্না। জানা গেছে, মঙ্গলবার শিষ্টাচার মেনে বোর্ড সভাপতির ঘরে বসেননি সৌরভ। তিনি অন্য কেবিনে বসেই যাবতীয় কাজকর্ম, মিটিং সেরেছেন।

বোর্ড সভাপতির চেয়ারে ২৩ অক্টোবরই বসবেন। বুধবার সকাল এগারোটায় শুরু হবে বোর্ডের দীর্ঘ প্রতীক্ষিত সেই বার্ষিক সাধারণ সভা। যা বসতে চলেছে ৩৩ মাস পরে। কারণ, ৩৩ মাস ধরে বোর্ডের যাবতীয় ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত সিইও। মঙ্গলবার মুম্বইয়ে সিইও প্রধান বিনোদ রাই নয়া সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

‘সৌরভ যোগ্য ব্যক্তি বোর্ড চালানোর। ও জানে কীভাবে কাজ করতে হয়। দেশের অন্যতম সফল অধিনায়ক। তা ছাড়া সৌরভের প্রশাসনিক কাজ করার অভিজ্ঞতাও রয়েছে। দীর্ঘদিন সিএবি চালিয়েছে।

আমি আশা করছি সৌরভের আমলে ভারতীয় ক্রিকেট এবং ক্রিকেটাররা প্রচুর সাহায্য পাবে এবং উন্নতি করবে।’ আরেক সদস্য ডায়না এডুলজিও প্রশংসা করেছেন সৌরভের। মঙ্গলবার রাতের মধ্যেই বোর্ডের সব সদস্য মুম্বইয়ে পৌঁছে যান।

মুম্বইয়ের এক সূত্র থেকে জানা গেছে, বোর্ডের সদস্যরা রাখতে চাইছেন না সিইও–র আমলে বোর্ডের বিভিন্ন পদে বসানো বহু টাকা বেতনে চাকরিরত কর্মীেদর। তাঁরা এ বিষয়ে সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে কথা বলতে চান। কিন্তু জানা গেছে, সিইও প্রধান বিনোদ রাই নাকি তাঁদের জন্য এমন রক্ষকবচ বানিয়ে রেখেছেন যে, কাউকে সরাতে গেলেই শীর্ষ আদালতের অনুমতি নিতে হবে। সুতরাং এক্ষেত্রে কী দাঁড়াবে তা আরেকটু সময় না গেলে বোঝা সম্ভব হবে না।‌‌