আরাবুলের উপর আক্রমণ জমি কমিটির, অবরোধ হাড়োয়া রোড

নিজস্ব সংবাদদাতা,পিএম নিউজ:আবার অশান্ত হয়ে উঠল ভাঙড়ের পাওয়ার গ্রিড এলাকা।শুক্রবার পোলেরহাট ২ নং অঞ্চলের শ্যামনগরে এক চায়ের দোকানে বসে কয়েক জন কর্মীকে নিয়ে বসে ছিলেন আরাবুল।অভিযোগ তখন জমি কমিটির লোকজন সশস্ত্র অবস্থায় আরাবুল ইসলামের উপর হামলা করে।হামলার কারণে আরাবুলের গাড়ীও কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয় বলে জানা গেছে।সব অভিযোগ অবশ্য অস্বীকার করে পাল্টা জমি কমিটির মিছিলে হামলার অভিযোগ এনেছেন অলিক চক্রবর্তী।অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এলাকায়।

শুক্রবার বিকাল ৪ টায় জমি কমিটি আরাবুলের গ্রাম দক্ষিণ গাজিপুরে এক মিছিলের আয়োজন করেছিল।যাদবপুর কেন্দ্রের বাম সমর্থিত সিপিআইএম প্রার্থী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্যের সেখানে উপস্থিত থাকার কথা।সেই মিছিলের উদ্দেশ্যে জমি কমিটির সমর্থকরা হাড়োয়া রোড হয়ে গাজীপুরের সভায় যাচ্ছিলেন।আরাবুল পুত্র হাকিমুল ইসলাম জানিয়েছেন ব্যাক্তিগত কাজে বশিরহাটে গিয়েছিলেন বাবা।সেখান থেকে ফেরার পথে শ্যামনগর মোড়ে কয়েক জন কর্মী বাবাকে দেখে দাঁড় করান।তাদের সঙ্গে বসেই চা খাচ্ছিলেন তিনি।তখন জমি কমিটির মিছিল এসে পড়ে।
তারা আরাবুল ইসলামকে দেখে তেড়ে এসে হামলা করে এবং গাড়ীতে ভাঙচুর চালায়।

সব অভিযোগ অস্বীকার করেছে জমি কমিটির নেতা অলিক চক্রবর্তী।তাঁর পাল্টা অভিযোগ জমি কমিটির পূর্ব নির্ধারিত সভার কথা জেনেও আরাবুল কেন শ্যামনগরে গেছিলেন।তিনি কি জমি কমিটির লোকেদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে গেছিলেন?তিনি বলেন আমাদের মিছিলের আসা লোক জন কে শাসাচ্ছিল আরাবুল।মিছিলের পথ আটকানোরও চেষ্টা করা হয়।জনগন ভয় না পেয়ে প্রতিরোধ করতে গেলে আরাবুল সেখান থেকে পালায়।

নিজের উপর হামলার অভিযোগে কাশিপুর থানায় অভিযোগ করেছেন আরাবুল।তিনি বলেন আমাকে খুন করার উদ্দেশ্যে এদিন জমি কমিটির শসস্ত্র বাহিনী হামলা করে,ভেঙে দেওয়া হয় তাঁর গাড়ী।অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবী জানিয়েছেন আরাবুল ইসলাম।ঘটনার পর নতুনহাট মোড়ে তৃণমূল কর্মীরা পথ অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায়।অবরুুদ্ধ হয়ে পড়ে লাউহাটি-হাড়োয়া রোড। ফলে চরম অসুবিধায় পড়েন পথ চলতি সাধারণ মানুষ।