হাড়োয়ার জনসভা থেকে মোদীকে তীব্র আক্রমণ মমতার

জাহাঙ্গীর হোসেন,পিএম নিউজ, হাড়োয়া: শনিবার বসিরহাট লোকসভা অন্তর্গত হাড়োয়ায় তৃণমূল প্রার্থী নুসরত জাহানের হয়ে প্রচার সারেন তৃণমূল সুপ্রিমো। এরপরই স্টেপ আউট করে নরেন্দ্র মোদীর এক এক কটাক্ষকে মাঠের বাইরে ছুড়ে ফেলতে শুরু করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পরই প্ল্যানিং কমিশন বাতিল করে প্রথম নীতি আয়োগ চালু করেছিলেন মোদী। সেই প্রসঙ্গ টেনে আক্রমণ শানিয়ে তৃণমূল নেত্রী বলেন, ‘নেতাজির তৈরি করে দেওয়া প্ল্যানিং কমিশন বাতিল করে নেতাজিকে অসম্মান করেছেন মোদী। নিজের মতো নীতি আয়োগ তৈরি করলেন। যেটার না আছে নীতি, না রয়েছে আয়োগ।

এ রাজ্যের একাধিক সভায় এসে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন অনুদান এবং প্রকল্প সম্পর্কে অবগত করার চেষ্টা করেছেন প্রধানমন্ত্রী। সেই ইস্যুতে পাল্টা শানিয়ে মমতা বলেন, ‘তুমি তো আমার রাজ্য থেকে ৫০ হাজার কোটির উপর ইনকাম ট্যাক্স তোল। আর বাংলাকে দাও মাত্র ৭ শতাংশ। ওটা কি নিজের পকেট থেকে দাও?

ঘূর্ণিঝড় ফণী চলে গেলেও তা নিয়ে অবশ্যও পাল্টা মোদী শাসানোর চেষ্টা করেছেন মমতাকে। তাঁর কথায়, ‘এখানে ফণী এল, ফণা তুলবে বলে। বাংলায় যেখান দিয়ে ঢোকার কথা ছিল, আমি সেখানে গিয়ে বসে ছিলাম। যে ফণাটা আগে আমার দিকে তুলুক, তারপর আমি ওখানে ঝাঁপাব। আমি ওই দুর্যোগের জায়গাটায় গিয়ে বসেছিলাম। আর মোদীবাবু আপনি, ভোটের জন্য মিটিং করে বেড়াচ্ছিলেন সেদিন।’ মমতা আরও বলেন, সবাইকে বলে বেড়াচ্ছে আমাকে নাকি দু’বার ফোন করেছিল। আমি তো খড়্গপুরে বসে ছিলাম। তুমি কি আমার মোবাইল নম্বর জানো না? দিন-রাত আমার ফোন ট্যাপ করছ আর নম্বর জানো না?

মমতা বলেন, ‘আমি শুধু সহ্য করে গেছি। আমার অর্থমন্ত্রকে লোক পাঠিয়েছিল কী কাজ করছি দেখতে। আমরা ঢুকতে দেইনি। কেন দেব? বাংলা নামের জন্য বিধানসভায় বিল পাশ করেছিলাম। বাংলা নাম নিয়ে কী আপত্তি? বাংলাকে শুধু তোমরা বঞ্চনা দিয়েছ। আর দাঙ্গা দিয়েছ।’