২১-শে জুলাই যান চলাচল সচল রাখতে আগাম বার্তা পুলিশ কমিশনারের

বাকি আর মাত্র কয়েকটা দিন। আগামী রবিবার তৃণমূলের ২১ জুলাইয়ের সমাবেশে৷ যেখানে জেলা থেকে লক্ষ লক্ষ মানুষের সমাগম হবে শহর কলকাতায়। তাঁদের কাছে যাতে কলকাতা পুলিশের সন্মান অক্ষুণ্ণ থাকে, সেজন্য আধিকারিকদের আগাম সতর্ক করে দিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার। আইন-শৃঙ্খলা এবং ট্রাফিকের ক্ষেত্রে পান থেকে চুন যাতে না খসে, সেই বিষয়ে কলকাতার প্রত্যেক পুলিশ আধিকারিককে নির্দেশ দিলেন অনুজ শর্মা।

সোমবার লালবাজারের পদস্থ কর্তা ও প্রত্যেক থানার ওসিদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন পুলিশ কমিশনার। লালবাজারের জানা গিয়েছে, কমিশনার আধিকারিকদের বলেন, আগামী ২১ জুলাই তৃণমূল কংগ্রেসের শহিদ সমাবেশে কলকাতার বাইরে থেকে প্রচুর মানুষ আসবেন। তাঁদের মধ্যে অনেকেই দু’একদিন আগে আসেন। রবিবার সকাল থেকেই মিছিল শুরু হবে। বিভিন্ন রাস্তা ধরে ধর্মতলার দিকে আসবে মিছিল। ধর্মতলায় মঞ্চে থাকবেন ভিআইপি ও ভিভিআইপিরাও। যে কোনও দিকেই আইন-শৃঙ্খলা এবং ট্রাফিক সংক্রান্ত সমস্যা যেন একটুও না হয়৷ তার জন্য প্রত্যেক আধিকারিককে বিশেষ গুরুত্ব ও নজর দেওয়ার নির্দেশ দিতে হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘কলকাতার বাইরে থেকে যাঁরা আসেন, তাঁদের কাছে যেন কলকাতা পুলিশের সুনাম অক্ষুণ্ণ থাকে। তাঁদের একজনও যেন কোনও সমস্যায় না পড়েন, তা দেখার দায়িত্ব পুলিশ আধিকারিকদেরই।’’

প্রসঙ্গত, ‘ব্যালট ফেরাও’-এই দাবিকে সামনে রেখেই এবার ২১ জুলাইয়ের কর্মসূচি নিয়েছে তৃণমূল। ইতিমধ্যে এই কর্মসূচি সফল করার জন্য তৃণমূল জেলায় জেলায় পথসভা, মিছিল, সমাবেশ করছে। সুব্রতবাবু জানান, এবার ২১ জুলাইয়ের সমাবেশে রেকর্ড সংখ্যক মানুষ আসবেন। গতবারের জনসমাগমকেও ছাপিয়ে যাবে এবার। আর এবার আমাদের লড়াই, ব্যালট চাই। লোকসভা নির্বাচনের পর এবার ২১ জুলাইয়ে তৃণমূলের সভা রাজনৈতিক দিক থেকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের কর্মীদের সভামঞ্চ থেকে কী বার্তা দেন, সেদিকেই নজর সকলের। সোমবার খুঁটিপুজোর মাধ্যমে শুরু হয় ধর্মতলায় ২১ জুলাইয়ের সভামঞ্চ তৈরির কাজ। যেখানে হাজির ছিলেন তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি, মন্ত্রী তাপস রায়। এছাড়াও ছিলেন তৃণমূল নেতা সন্দীপ বক্সি, রতন দে, স্বরূপ বিশ্বাস, সৌম্য বক্সি, অলোক দাস প্রমুখ।

সুত্র: সংবাদ প্রতিদিন