জলপাইগুড়িতে, পঞ্চায়েত আধিকারিককে মারধোরের জেরে, ধর্ণায় পঞ্চায়েত কর্মীরা

জলপাইগুড়িতে, পঞ্চায়েত আধিকারিককে মারধোরের জেরে, ধর্ণায় পঞ্চায়েত কর্মীরা

বিতান সরকার, পি.এম.নিউজ ৩৬৫, জলপাইগুড়ি: আজ মালবাজার ব্লকের ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েতের, পঞ্চায়েত কর্মীরা মালবাজার বিডিও অফিসের সামনে ধর্ণায় বসেন।
পঞ্চায়েত আধিকারিককে মারধোরের ঘটনায় অভিযুক্তকে গ্রেফতার এবং পঞ্চায়েত কর্মীদের নিরাপত্তার দাবিতে তাদের এই ধর্ণা।
প্রসঙ্গত,গত বৃহস্পতিবার রাজাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের নির্বাহী সহায়ক গোপাল মণ্ডলকে অন্যায়ভাবে মারধোর এবং পঞ্চায়েত অফিসে ভাঙচুর চালানোর অভিযোগ ওঠে ওই পঞ্চায়েতেরই সদস্য তথা তৃনমূল নেতা মেহবুব আলম ও তার দলবলের বিরুদ্ধে।

নিজের দলের পঞ্চায়েত প্রধান এর সঙ্গে গোষ্ঠী কোন্দলের জেরেই এই ঘটনা বলে অভিযোগ। ওই দিনই ক্রান্তি ফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের হয়।কিন্তু মূল অভিযুক্ত ওই তৃনমূল নেতা এখনো গ্রেফতার হয়নি। এর প্রতিবাদে এবং নিরাপত্তা চেয়ে গত শুক্রবার মালবাজার বিডিও অফিসে ধর্ণায় বসেন পঞ্চায়েত কর্মীরা।

আজও ফের একই দাবিতে ধর্রনায় বসেন তারা। এদিকে অধিকাংশ কর্মী কাজ বন্ধ করে ধর্ণায় বসায়
পঞ্চায়েতের কাজকর্মও ব্যাহত হচ্ছে।আজ বিকেলে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন মালবাজারের মহুকুমা শাসক বিবেক কুমার এবং বিডিও বিমান দাস।
মহুকুমা শাসক
জানিয়েছেন,পুলিশকে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।পাশাপাশি কর্মীদের নিরাপত্তাও নিশ্চিত করা হবে।

তিনি কর্মীদের ধর্ণা তুলে নিতে অনুরোধ জানান। যদিও এদিন ধর্ণা তুলতে রাজি হয়নি কর্মীরা। আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে তারা জানিয়েছেন।এদিকে ঘটনায় পঞ্চায়েত কর্মীদের পাশে দাঁড়িয়ে তৃনমূলের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে বিজেপি নেতৃত্ব। যদিও বিষয়টি নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন তৃনমূল নেতৃত্ব।