স্কুলের বন্ধুত্বের বন্ধন, লক ডাউনে একত্রিত হয়ে অসহায়দের সাহায্যে এগিয়ে এলো

নিজস্ব সংবাদদাতা, পিএম নিউজঃ প্রত্যহ দেখা হোক বা না হোক, না হোক কথা, বন্ধুত্ব কিন্তু বন্ধুত্বই হয়। বন্ধুত্ব নামক সম্পর্কটা আমৃত্যু টিকে থাকে। পুনর্বার এর প্রমাণ পাওয় গেল কাশিপুর থানার ওসি বিশ্বজিৎ ঘোষ এর মধ্যে।১৯৮৮ সালে প্রত্যেককে মাধ্যমিক দিয়েছেন একসাথে। বর্তমানের দেখা-সাক্ষাৎ হয় মাঝে মাঝে হয় আড্ডাও। তবে এবারের সাক্ষাতে তারা কিছুটা হলেও অন্যরকম।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সারা ভারত জুড়ে চলছে লকডাউন। দিন দুঃখীর দরিদ্র মানুষদের রুটি-রুজি নেই বললেই চলে কারণ প্রত্যেকেই গৃহবন্দী। খাদ্য যোগাড় করতে সাময়িকভাবে অসমর্থ মানুষদের একসাথে পাশে দাঁড়ালেন ২২ বছরের পুরনো বন্ধুরা। সবাই একসাথে গ্রামের ছোট ছোট কুঁড়ে ঘরে বসবাসকারী অসহায় মানুষদের হাতে তুলে দিলেন খাদ্য সামগ্রী।

ভাঙ্গরে কাশিপুর এলাকার ওসি হলেন বিশ্বজিৎ ঘোষ। নিজের চেষ্টায় এবং কর্মসূত্রে ওই এলাকার আশপাশের অঞ্চলগুলি বেহাল অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। ভাঙ্গড়ের অধিকাংশ মানুষ দিনমজুর। দিন আনে দিন খায়, বেশ কষ্টে-সৃষ্টে চলে দিন। সাধারণ মানুষের এই দূরাবস্থার কথা তিনি তার বন্ধুদের জানান। বলার সঙ্গে সঙ্গেই তার বন্ধুরাও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন। বন্ধুদের সাহায্যে এলাকার মানুষদের দান করলেন খাদ্য সামগ্রী। তাদের এই কর্মকাণ্ড খুশি গ্রামবাসী।

লকডাউন উপেক্ষা করে বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের ওপর অত্যাচার হতে দেখা যাচ্ছে। দেশের আইন রক্ষক দের ওপর এমন অন্যায়কারীদের উচিত শিক্ষা দিতে উপরিউক্ত উদাহরণটি যথেষ্ট। পুলিশ দেখলে ভয় ভীতির কারণ, ঘুষখোর, তোলাবাজ ইত্যাদি বলে নিন্দা করে। কিন্তু আজকের এই কর্মসূচি সাধারণ মানুষের ভুল ধারনাকে কিছুটা হলেও বদলাতে সাহায্য করবে।