জলের তোড়ে ভেসে গেলো বাঁকুড়ার কেশরকুড়ি ঘাটের কাঠের সেতু

সুদীপ সেন,পি.এম.নিউজ;বাঁকুড়া:বাঁকুড়া জেলার শালতোড়া ব্লকের বামুনতোড় অঞ্চলের অস্থায়ী সেতু কেশর কুড়ির ঘাট।অসংখ্য মানুষ রুটি- রুজির টানে বার্নপুর,আসানসোল যান এই কাঠের সেতু দিয়ে।

কয়েক বছর আগে যখন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রামবিলাস পাসওয়ান ও বাঁকুড়ার সাংসদ বাসুদেব আচারিয়া তখন এই সেতু করার উদ্যোগ নেওয়া হয় ও উদ্বোধন ও হয়। তারপর থেকে এই ব্রিজ নিয়ে কোনো উদ্যোগ চোখে পড়েনি। ৪ থেকে ৫ হাজার মানুষ প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই সেতু পারাপার করেন।

২৯/৮/১৯ সকাল ৭ টার কাছাকাছি সময় এই সেতু জলের তোড়ে হঠাৎ ভেঙে পড়ে। অসংখ্য মানুষ ব্রিজ পেরিয়ে বার্নপুর, আসানসোলে কাজে যান। প্রায় ১০০ থেকে ১৫০ ফুট কাঠের সেতু হুড় মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে। জলে ভেসে যান সাবুর বাঁধের বাপী বাউরী ও তি লুড়ির বিকাশ মিশ্র। বিকাশ মিশ্রের স্কুটি গাড়িটি ও জলে পড়ে যায়। প্রায় ২ থেকে ৩ কিলোমিটার তারা দামোদর নদের জলে ভেসে যান। পরে স্থানীয় মানুষ জন ও নৌকোর মাঝিরা তাদের উদ্ধার করে।

এক বড়ো সড়ো দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা হলো অনেকের। কিন্তু অনেকের প্রশ্ন,এতো জল যেখানে, সেখানে এই অর্ধভগ্ন কাঠের সেতু দিয়ে পারাপারের অনুমতি দেওয়া হয় কিভাবে? মাঝে প্রশাসনের নির্দেশে সেতুটি বন্ধ ছিল। এই সেতুটির কি পুনরায় প্রশাসনিক অনুমতি মিলেছে?এলাকার জনসাধারণের দাবী ‘স্থায়ী ব্রিজের’।যার মাধ্যমে আসানসোল,বার্নপুরের সাথে অসংখ্য গ্রামের যোগাযোগ হয়ে ব্যবসা,বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক উন্নতি ঘটবে। এই আশায় তাকিয়ে সবাই।